শ্রমিকলীগ আশুলিয়া আঞ্চলিকের সভাপতি পদে এক ধাপ এগিয়ে সারোয়ার হোসেন

প্রকাশিত: 7:36 PM, September 25, 2020
নিজস্ব প্রতিবেদক
জাতীয় শ্রমিকলীগ, আশুলিয়া আঞ্চলিক কমিটির সভাপতি পদে জনপ্রিয়তায় এগিয়ে শ্রমিক নেতা সারোয়ার হোসেন। যার পোশাক শিল্প কারখানায় রয়েছে ৭ বছর কর্মের অভিজ্ঞতা, একই সাথে শ্রমিকদের নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন বিগত ১০ বছর ধরে।
সাভার ও আশুলিয়া শিল্প অধ্যুষিত এলাকা হওয়ায় এখানে লক্ষ লক্ষ শ্রমিকরে বাস। তাদের বিভিন্ন ধরনের আইনি সহায়তা এবং তাদের অধিকার আদায়ে রাজপথে দীর্ঘ ১০ বছর ধরে যিনি আছেন শ্রমিকদের সাথে, তাকেই জাতীয় শ্রমিকলীগ, আশুলিয়া আঞ্চলিক কমিটির সভাপতি হিসাবে দেখতে চায় এই অঞ্চলের শ্রমিক জনতা।
২০১৯ সালের শেষ নাগাদ আওয়ামীলীগের বিভিন্ন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের কাউন্সিল সম্পন্ন হয়। এসময় সম্পন্ন হয় জাতীয় শ্রমিকলীগের কেন্দ্রীয় কাউন্সিল। এই কাউন্সিলে সভাপতি হিসাবে বীর মুক্তিযোদ্ধা ফজলুল হক মন্টু, সাধারণ সম্পাদক হিসাবে আযম খশরু ও কার্যকরী সভাপতি হিসাবে আবুল কালাম আজাদের নাম ঘোষণা করা হয়। ইতি মধ্যে কার্যকরী সদস্য অসুস্থতাজনিত কারনে মৃত্যুবরণ করেন। করোনাকাল এবং নানা প্রেক্ষাপটে পূর্ণাঙ্গ কমিটির বিষয়ে কোন সিদ্ধান্ত না হলেও ইতিমধ্যে আওয়ামী লীগের নীতি নির্ধারকরা সকল বিভিন্ন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের পূর্ণাঙ্গ কমিটির জোর তাগিদ দেন।
শ্রমিক লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি শীঘ্রই ঘোষণা হবে বলে বিশ্বস্ত সূত্রে জানা যায়। পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণার পরপরই সারা দেশে মেয়াদ উত্তীর্ণ কমিটি গুলো নিয়মতান্ত্রিভাবে পূণর্গঠিত হবে। এই নতুন কমিটিতে স্থান করে নিতে ইতিমধ্যেই নেতা কর্মীদের শুরু হয়েছে দৌড়-ঝাপ। শ্রমিক অধ্যুষিত এলাকা আশুলিয়াও এর ব্যতিক্রম নয়।
সারোয়ার হোসেনের জন্ম ১৯৮২ সালে বৃহত্তর নোয়াখালীর লক্ষীপুর জেলার বশিকপুরে। সেখানেই তিনি তার ছোটবেলা কাটিয়েছেন। স্থানীয় স্কুল ও কলেজ থেকে ৫ বিষয়ে লেটার মার্ক নিয়ে প্রথম বিভাগে এসএসসি, চার বিষয়েয় লেটার মার্ক নিয়ে এইচএসসি ও দুই বিষয়ে লেটার মার্ক নিয়ে বিকম সম্পন্ন করেন তিনি। পরে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্যবস্থাপনা বিভাগে অধ্যায়ন করেন তিনি। এর পরেই জীবিকার তাগিদে চলে আসেন সাভারের আশুলিয়ায়। এরপরই শুরু হয় তার জীবন যুদ্ধ। এসময় শ্রমিকদের দুর্দশা তার মনে দাগ কাটে। তখনই কর্মজীবনের ইতি টেনে পাশে দাঁড়ান শ্রমিকদের। কাজ করে যান শ্রমিকদের স্বার্থে। সারোয়ার হোসেনের বাবা আমির হোসেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন।
মাধ্যমিকে অধ্যায়নরত অবস্থায় ছাত্র লীগের মাধ্যমে রাজনীতিতে হাতে খড়ি তার। বিগত বিএনপি-জামায়েত জোট সরকারের সময়ে বশিকপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। পরে এসে যুক্ত হন শ্রমিকদের দাবি আদায়ে রাজপথের লড়াকু সৈনিক হিসাবে। ২০১৮ সালে তার সাংগাঠনিক কর্মদক্ষতায় তৎকালীন ঢাকা-১৯ এর সাংসদ জাতীয় শোক দিবসের অনুষ্ঠানে সাভার আশুলিয়ার শ্রমিক রাজনীতির আইকন উপাধি দেন সারোয়ার হোসেনকে।
সারোয়ার হোসেন বর্তমানে বাংলাদেশ বস্ত্র ও পোশাক শিল্প শ্রমিকলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন। এর আগে জাতীয় শ্রমিকলীগ, আশুলিয়া আঞ্চলিক কমিটির সহ-সভাপতি পদে সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি। তিনি একাধারে আন্তর্জাতিক শ্রমিক সংস্থা ইন্টারন্যাশনাল লেবার অর্গানাইজেশন (আইএলও) এর প্রশিক্ষক, বিভিন্ন সেমিনার ও প্রশিক্ষণ গ্রহণে একাধিকবার গিয়েছেন বিদেশে। শ্রমিক রাজনীতির সেরা সাফল্য হিসাবে ২০১৭ সালে সাভার আশুলিয়ার সকল শ্রমিক ফেডারেশনের পক্ষ থেকে সেরা কমিউনিটি হিসাবে পেয়েছেন আইজিপি পদক।
শ্রমিকদের মধ্যমনি সারোয়ার হোসেন জাতীয় শ্রমিকলীগ, আশুলিয়া আঞ্চলিক কমিটির সভাপতি পদে মনোনীত হলে শ্রমিকদের সকল ধরনের স্বার্থ রক্ষা হবে বলে মনে করছেন এখানকার লক্ষ লক্ষ শ্রমিক জনতা।