বিভিন্ন দাবিতে তাজরিন ফ্যাশন অগ্নিকাণ্ডে আহত শ্রমিকদের অবস্থান কর্মসূচী

প্রকাশিত: 5:03 PM, September 19, 2020
ছবি: সংগৃহীত

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, ঢাকা

সাভারের আশুলিয়ার পোশাক শিল্প তাজরিন ফ্যাশন লিমিটেডের ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে আহত শ্রমিকরা তাদের ক্ষতিপূরনের দাবিতে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছেন। এসময় পুনর্বাসন ও সুচিকিৎসার দাবিও তোলেন তারা।

শনিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) সকালে রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এ কর্মসূচি পালন করেন তারা। কর্মসূচীতে ভুক্তভোগী আহত শ্রমিকদের প্রায় ২০টি পরিবার অংশ নেয়।

এসময় শ্রমিকরা আক্ষেপ করে বলেন ‘ ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে তাজরিন ফ্যাশন লিমিটেডের আহত শ্রমিকরা এখন কোন রকম কাজ করতে পারছেনা। তারা বিনা উপার্জনে মানবেতর জীবনযাপন করছেন। তাদের বাড়িতে থাকার কোনো পরিবেশ নেই, অনেকের পরিবারে অন্য কোনো উপার্জনক্ষম ব্যক্তি নেই। অনেকে অন্য কারখানায় চাকরি নিতে গেলে তাজরিনের আহত শ্রমিক বলে কাজে নিতে চায় না। আহতরা তেমন কাজ করতে পারে না ভেবে এমন সিদ্ধান্ত নেয় কারখানার কর্মকর্তারা। এমন অভিযোগ করে শিগগিরই আহত শ্রমিকদের ক্ষতিপূরণ, পুনর্বাসন ও সুচিকিৎসার দাবি জানায় আহত শ্রমিকরা। ’

তাজরিনের অগ্নিকান্ডে আহত হয় শ্রমিক নাছিমা আক্তার। তিনি বলেন, ওই দিন আমি মেরুদন্ডে ব্যাপক আঘাত পাই। এই সমস্যার কারনে আমি আর শক্ত কাজ করতে পারি না। বাধ্য হয়ে অন্যের বাসায় কাজ করতাম, এখক করোনার কারেনে মানুষের বাসায় কাজে নেয় না। আমাদের থাকর মত কোন জায়গাও নাই। এই মহুর্তে কঠিন সময় পার করছি আমরা।

শ্রমিক হালিমা খাতুন নিজের ছোট্ট শিশুকে বুকে নিয়েই কর্মসূচিতে যোগ দিয়ে বলেন, ‘ সে দিন আতঙ্ক ও জীবন বাঁচানোর জন্য বহুতল ভবন থেকে লাফিয়ে পড়েছিলেন অনেকেই। আমিও এই অগ্নিকাণ্ডে আহত হয়েছিলাম। করতে হয়েছিলো অপারেশন, যার কারনে আমি হারিয়ে ফেলেছি কর্ম ক্ষমতা। আমাদের সমস্যার কথা বিভিন্ন সময় বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠন ও সরকারের ঊর্ধ্বতন পর্যায়ে জানিয়েছি, কিন্তু কোনো ফলাফল পায়নি। শুনেছিলাম কিছু সাহায্য এসেছিল, সেগুলোও নেতারা লুটপাট করেছেন। এখন আমরা কোনো কাজ করতে পারি না। নিজের বাচ্চার খাবার জোগাড় করতেও হিমশিম খেতে হয়। ’

‘ভয়বহ দুর্ঘটনার সময় চিকিৎসার পর আমাদের পুনর্বাসনের কথা থাকলেও এখনো তা হয়নি। কোম্পানির বিভিন্ন বায়ারও সেসময় আমাদের সাহায্যের কথা বলেছিলেন। কিন্তু আমরা সেটিও পাইনি। সব মিলিয়ে আমরা এখন দুর্বিষহ জীবনযাপন করছি বলে জানান শ্রমিক আনিস আহমেদ। ’

এসময় দ্রুত সঠিকভাবে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার ব্যবস্থার করতে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দৃষ্টি আকর্ষণ করেন এসব শ্রমিকরা ।