রবিবার, ০৫ Jul ২০২০, ০৬:২৭ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তিঃ
আপনার প্রতিষ্ঠানের বিশ্বব্যাপী প্রচারের জন্য বিজ্ঞাপণ দিন * আপনার চোখে পড়া অথবা জানা খবরগুলোও আমাদের কাছে গুরুত্বর্পূণ তাই সরাসরি জানাতে ই-মেইল করুনঃ ‍shromikdarpan@gmail.com * আপনার পাঠানো তথ্যর বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব * সারাদেশে জেলা, উপজেলা, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় ও বিভাগীর পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে * আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন * মোবাইলঃ ০১৯২৯৭৫৪৫৩০।
সংবাদ শিরোনাম :
রাতের আঁধারে কারখানা থেকে মেশিন স্থানান্তর, শ্রমিকের হাতে আটক ২ শ্রমিকদের জন্য ৪০ হাজারেরও বেশি মাস্ক দিলেন ‘ডব্লিউআরসি’ বকেয়া বেতনের দাবিতে আশুলিয়ায় পোশাক নীট কারখানার শ্রমিকদের অবস্থান নিরুপায় ছাঁটাই হওয়া শ্রমিকরা, স্বপ্ন ভঙ্গে ফিরছেন গ্রামে আশুলিয়ায় শ্রমিক নেতাকে মারধরের অভিযোগ মারধরের বিচার চাওয়ায় পতিতার অপবাদ; বিচার না পেলে আত্মহত্যার হুমকি নারী শ্রমিকের করোনা মুক্তি কামনায় শ্রমিকদের ঈদের শুভেচ্ছা জানালেন শ্রমিক নেতা ইমন শিকদার শ্রমিক ভাই-বোনদের ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানালেন শ্রমিক নেতা সরোয়ার করোনা সুরক্ষায় শ্রমিকদের কর্মস্থল এলাকায় ঈদ পালনের আহবান শ্রমিক নেতা ইব্রাহিমের করোনাভাইরাসের অস্তিত্ব বিলীনের প্রত্যাশায় শ্রমিকদের ঈদের শুভেচ্ছা জানালেন শ্রমিক নেতা মাসুদ রানা
সিট বেল্ট বাঁধুন নিজের জন্য; ট্রাফিক সার্জেন্ট এর জন্য নয়!

সিট বেল্ট বাঁধুন নিজের জন্য; ট্রাফিক সার্জেন্ট এর জন্য নয়!

মোঃ সরোয়ার হোসেন । প্রত্যেকটি গাড়ির সামনের সিটে যিনি বসেন এবং ড্রাইভার সাহেবের জন্য সিট বেল্ট নির্ধারিত থাকলেও, এই বিষয়ে দেখা গেছে যথেষ্ট গাফলতি বা অনিচ্ছা।

“নিজের ভাল পাগলে বোঝে” কথাটি অনেক পুরানো কিন্তু কথাটি আসলে পাগলের জন্য নয়, কথাটি সত্যিকার অর্থে জ্ঞানী ব্যক্তির জন্য প্রযোজ্য হলেও জ্ঞানী ব্যক্তিরাই বরং বেশী সময় নিজের ভালোর কথা ভুলে যান। যেমন সচরাচন প্রাইভেট কারের কথা যদি বলি, তাহলে কোন পাগল সামনে বসেনা, বসেন জ্ঞানী ব্যক্তি। পাগল হলে তাকে ধরে রাখতে হবে পিছনের সিটে। কিন্তু সচরাচর দেখা যায় গাড়ির সামনে যিনি বসে আছেন তিনি সিট বেল্টটি বাঁধেননি বরং ড্রাইভার সাহেবও বেশী উদাসিন।

তবে লক্ষ্যনীয় যে, গ্রাম্য পথে বা যা যেখানে ট্রাফিক সার্জেন্ট নেই সেখানে সিল বেল্ট না বাঁধলেও যে জায়গা গুলিতে ট্রাফিক সার্জেন্ট আছেন সেখানে গাড়ি চলন্ত অবস্থায় ড্রাইভার তার সিট বেল্টটি বেঁধে ফেলেন।

কি আর্চায্য! সিট বেল্ট কি ট্রাফিক সার্জেন্টকে দেখার জন্য? সিট বেল্ট বাঁধার আইন কি করেছেন সরকার উপকৃত হবে এই জন্য? তাহলে কেন এমনটি হয়! কষ্টের ব্যাপার এই যে, ট্রাফিক সার্জেন্ট এর এরিয়া পার হয়ে গেলে আবারও উচপিচ করা ড্রাইভার সাহেব তার সিটবেল্টটি খুলে ফেলে নিশ্বাস ফেলেন, মনে হয় উনি হাফ ছেড়ে বাঁচলেন। তবে ভাল লাগে যে, বাংলাদেশের বর্তমান ট্রাফিক আইনটি কার্যকর বটে। এভাবে চলতে থাকলে এক সময় সব ড্রাইভার ও সামনে বসা ভদ্রলোকটি তার সিট বেল্ট বানতে অভ্যস্থ হয়ে পড়বেন। আসলে কেন এই সিটবেল্ট?
সিট বেল্টটি এমন ভাবে লাগানো যে, যদি কোন কারণে সামনে থেকে বড় কোন আঘাত আসে বা গাড়িটি নিজেই কোন বড় বিপদে পড়ে যখন গাড়ির স্পিড অনেক বেশী থাকে তখন গাড়ির সামনে বসা ভদ্রলোক অথবা ড্রাইভার নিজেই সামনের ডেকে ধাক্কা লেগে মাথায় আঘাত প্রাপ্ত হতে পারেন এবং মারাত্মক জখম সহ মৃত্যুও হতে পারে। বিভিন্ন সময়ে দুর্ঘটনায় পতিত ব্যক্তি থেকে বেঁচে যাওয়া ব্যক্তিদের পরিসংখ্যানে দেখা গেছে কমপক্ষে ৩০% ব্যক্তি মৃত্যুর হাত থেকে বেঁচে গেছেন শুধু সিট বেল্ট বাঁধার কারণে।

আসলে কেন এই সিট বেল্ট আপনাকে মৃত্যুর হাত থেকে অথবা বড় ধরণের জখমের হাত থেকে রক্ষা করবে?


অত্যন্ত সহজ ভাবে বলতে গেলে বলা যায় যে,
(ক) গাড়ির ফ্রন্ট সাইডে একটি “এয়ারব্যাগ” থাকে যা গাড়ির প্রচন্ড গতিতে ধাক্কা লাগলে সিট বেল্ট এর সাথে সংযুক্ত থাকার কারণে ফ্রন্ট সাইড থেকে ব্যাগটি বের হয়ে আসবে এবং তা সামনে বসা মানুষটিকে রক্ষা করবে। এরপরও যদি কোন কারণে এয়ারব্যাগটি নাও খোলে তবুও সামনের শক্ত জায়গায় মানুষটির মাথা আঘাত প্রাপ্ত হবেনা।
(খ) যদি কোন কারণে গাড়িটি রাস্তা থেকে নিচ পড়ে এবং ঘুরপাক খায় তাহলে সিট বেল্ট বাঁধা থাকার কারণে লোকটির শরীরে গাড়ির শক্ত আবরণের ধাক্কা লাগবেনা। আহত হলেও বড় ধরণের বিপদ থেকে বেঁচে যাওয়ার সম্ভবনা থাকবে।

আমি সকল গাড়ি চালক সহ গাড়িতে আহরণকারী সম্মানীত ব্যক্তি/ব্যক্তিবর্গকে অনুরোধ করছি, আপনারা নিজের স্বার্থে সিট বেল্ট বাঁধুন। ট্রাফিক সার্জেন্ট আপনাকে আপনার জীবন বাঁচাতে সাহায্য করেন। আপনি যখন আপনার নিজ স্বার্থ বোঝেন না তখন তারা বাধ্য হয় বোকামীর সেলামী তুলে দেন আপনাদের হাতে। ধন্যবাদ সকল ট্রাফিক সার্জেন্টকে, ধন্যবাদ সরকার মহোদয়ের কঠোর হস্তক্ষেপকে।

“সিট বেল্ট বাঁধুন, নিরাপদে যাতায়াত করুন”





©SHROMIK DARPAN All rights reserved
Design BY PopularHostBD